গুগল কিভাবে কাজ করে সঠিক ভাবে জানতে চাই,

গুগল কিভাবে কাজ করে সঠিক ভাবে জানতে চাই

আমরা যদি কোন তথ্য জানতে চায় তাহলে সবার প্রথমে আমাদের যেটার কথা মনে পড়ে সেটা হলো গুগোল। গুগোল বর্তমান সময়ে এতটাই জনপ্রিয় যে গুগোল শব্দটা এখন ডিকশনারিতে জায়গা করে নিয়েছে। আমাদের অজানা কোন কিছু যদি কাউকে জিজ্ঞেস করি তাহলে সেখান থেকে অ্যানসার আসে যে গুগলকে জিজ্ঞেস করো গুগোল সঠিক তথ্য জানাভা।

আরো পড়ুনঃ 15GB ফ্রী গুগোল ড্রাইভ কিভাবে ব্যবহার করবেন বিস্তারিত এই পোস্ট

কিন্তু আমাদের অনেকেই হয়তো জানেন না যে গুগল কিভাবে সঠিক তথ্যটি বের করে থাকে। অন্তর্জাল ব্যবহার করে কিন্তু এখনও পর্যন্ত গুগলের নাম শোনেননি এমন মানুষ পৃথিবীতে খুঁজে পাওয়া কঠিন তবে। তথ্য অনুসন্ধান এর কাজ গুগোল ছাড়াও কিন্তু আরো কিছু সার্চ ইঞ্জিন যেমন Yahoo, bing, duckduckgo রয়েছে তারাও করে থাকে। এই সমস্ত সার্চ ইঞ্জিনগুলো নিজ নিজ কাজের জন্য জনপ্রিয় এবং সার্চ ইঞ্জিন স্থান হিসেবে প্রসিদ্ধি। যদিও বর্তমান সময়ে জনপ্রিয়তার দিক থেকে গুগলের ধারের কাছেও অন্য কোন সার্চ ইঞ্জিন নেই ।


Search Engine কী? গুগল সার্চ ইঞ্জিন

আমরা ম্যাক্সিমাম মানুষ প্রতিনিয়ত বিভিন্ন কাজের সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু সার্চ ইঞ্জিন আসলে কি এই জিনিসটা আমরা অনেকেই ক্লিয়ার ভাবে জানিনা। আমি যদি সহজ ভাষায় বলি তাহলে সার্চ ইঞ্জিন হল এমন একটা সফটওয়্যার সিস্টেম যেটা world-wide-web এর অন্তর্ভুক্ত সাইটগুলো থেকে তথ্য খুঁজে বের করতে আমাদেরকে সব সময় সাহায্য করে ।

আরো পড়ুনঃ গুগল কিভাবে কাজ করে বিস্তারিত এই পোস্ট

আমরা সার্চ ইঞ্জিনের মাধ্যমে আমাদের প্রয়োজনীয় তথ্য বা দরকারি ওয়েবসাইট কোন ঠিকানা না জেনেই খুঁজে বের করতে পারি । এজন্য সার্চ ইঞ্জিন ওয়েব ডেভলপার এবং

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ।


সার্চ ইঞ্জিন এর কাজ। The work of search engines


বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিন এবং গুগলের যতটা প্রসার হয়েছে আমাদের কষ্ট তত কমে গেছে। কারণ গুগল এবং বিভিন্ন স্থানে সার্চ ইঞ্জিন প্রসারের ফলে আমাদের কষ্ট করে প্রয়োজনীয় সব তথ্য মাথায় বোঝায় করে রাখতে হয় না। আমার যদি কোন কিছু জানার প্রয়োজন মনে করি তাহলে শুধু গুগল ওপেন করে সার্চ করলেই মুহূর্তের মধ্যে আমাদের সামনে লাখ লাখ রেজাল্ট এসে যায়। সার্চ করতে গিয়েও মজা কারণ সার্চ করতে গিয়ে আমরা যদি বানান ভুল করে থাকি তাহলে গুগল সেটাকে একদম শুদ্ধ করে রেজাল্ট আমাদেরকে দেখিয়ে দেয়। 

আবার দেখা যায় যে আমাদের একটা বিষয়ের উপরে খুব ভালো ধারণা নেই আন্দাজের ওপরে আমরা কিছু একটা লিখে যদি সার্চ করি তাহলেও গুগোল আমাদের মনের কথা বুঝে নিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য আমাদের সামনে হাজির করে। আর এই সমস্ত ফলাফল আমরা কি লিখতে চাচ্ছি সেটা গুগলের বুঝে নিতে এক সেকেন্ডের কম সময় লাগে। পৃথিবীতে শত শত কোটি কোটি সাইট ঘেঁটে সেটার মধ্যে থেকে মাত্র এক সেকেন্ড এরকম সময়ে তথ্য বের করাটা নিশ্চয়ই কোন মুখের কথা না। সার্চ ইঞ্জিন এই অসম্ভব কাজটি কিভাবে এত দ্রুত করে থাকে সেটাই আমি আপনাদের আজকে এই পোষ্টের মাধ্যমে জানাবো।


তথ্য খোঁজার জন্য ৩টি ধাপ | গুগল কিভাবে কাজ করে

প্রতিটি সার্চ ইঞ্জিনে একটি বিশাল হার্ড ডিস্কের সমন্বয়ে একটি সার্ভার থাকে। ইন্টারনেটে সমস্ত তথ্য সার্চ ইঞ্জিনগুলি সেই হার্ড ডিস্কগুলিতে সংরক্ষণ করে এবং সেখান থেকে এটি প্রয়োজন অনুযায়ী প্রত্যেককে তথ্য সরবরাহ করে।

আরো পড়ুনঃ কিভাবে জিমেইল আইডি খোলা যায় বিস্তারিত এই পোস্ট

এখন প্রশ্ন হল কীভাবে এই তথ্য সার্চ ইঞ্জিনগুলি  সংগ্রহ করে? পূর্বে উল্লিখিত হিসাবে প্রতিটি সার্চ ইঞ্জিনের নিজস্ব সুবিধা রয়েছে। তারা তাদের নিজস্ব বৈশিষ্ট্য অনুসারে তাদের ব্যবহারকারীদের পরিবেশন করে। সুতরাং যদিও সার্চ ইঞ্জিনগুলি একে অপরের সাথে সম্পূর্ণরূপে মেলে না তারপরেও প্রতিটি অনুসন্ধান ইঞ্জিন 3 টি পদক্ষেপ অনুসরণ করে।

  • একটি ইন্ডেক্স তৈরি করা হয় অনুসন্ধানে প্রাপ্ত শব্দ গুলোকে নিয়ে 
  • ইউজাররা যে তথ্য সার্চ করে সেটাকে তাদের ইনডেক্সের সাথে মিলিয়ে দেখা ওয়েবে তথ্য অনুসন্ধান করে
  • গুরুত্বপূর্ণ কিবোর্ড এর উপর ভিত্তি করে অনেকগুলো ভাগ করা

ওয়েবসাইট ভিজিট, ইনডেক্স তৈরি, অনুসন্ধান ক্যোয়ারী ম্যাচিং - এই জটিল কাজগুলি কিছু কৌশলগুলির মাধ্যমে করা হয়।

আরো পড়ুনঃ আনলিমিটেড ফ্রি গুগল ড্রাইভ সারাজীবনের জন্য বিস্তারিত এই পোস্ট


ওয়েব ক্রলিং করা | গুগল কিভাবে কাজ করে


আপনি যদি গুগল অনুসন্ধান করেন তবে গুগল আপনাকে ফলাফলগুলি প্রদর্শন করবে, তবে গুগলকে প্রথমে ফলাফলগুলি বের করতে হবে। প্রতিটি সার্চ ইঞ্জিনের এটি করার জন্য একটি বিশেষ সফ্টওয়্যার রোবট রয়েছে। তাদের কাজটি ওয়েবে নেভিগেট করা এবং সমস্ত কিছু রেকর্ড করা। সার্চ ইঞ্জিনগুলির ভাষায়, তাদের "মাকড়সা" বলা হয়। তারা নিয়মিত ইন্টারনেটে প্রতিটি লিঙ্কে যান। প্রতিবার কোনও সাইট দেখার জন্য, এটি সাইটের নতুন লিঙ্কগুলি সংগ্রহ করে এবং সার্ভার থেকে হারিয়ে যাওয়া বা মৃত লিঙ্কগুলি মুছে দেয়। 

প্রথমত স্পাইডার বিভিন্ন জনপ্রিয় পৃষ্ঠাগুলি থেকে শব্দ বা কীওয়ার্ড সংগ্রহ করে। তারপরে সেই সাইটের অন্যান্য পৃষ্ঠাগুলির লিঙ্কগুলি অনুসরণ করুন। সেই পৃষ্ঠাগুলিতে যান এবং অন্যান্য লিঙ্কগুলি অনুসরণ করুন। এইভাবে, মাকড়সার যাত্রা অব্যাহত থাকে। কোনও নতুন পরিবর্তন আছে কিনা তা দেখার জন্য স্পাইডারটি সময়ে সময়ে সাইটে প্রবেশ করে। উদাহরণস্বরূপ ফিল্টপস.কম ব্লগে প্রতিদিন নতুন নিবন্ধগুলি প্রকাশিত হচ্ছে। তবে গুগলের স্পাইডারকে কেউ বলেনি। 

আপনি যদি নিবন্ধগুলির শিরোনাম সহ গুগলে অনুসন্ধান করেন তবে আপনি দেখতে পাবেন যে ফিল্টপস.কম এর নিবন্ধগুলি ফলাফল নিয়ে এসেছে। কারণ স্পাইডার যদি নতুন নিবন্ধগুলি সম্পর্কে না জানে তবে ফিল্টপস.কম কিন্তু কে জানে। সুতরাং তিনি ক্রমাগত ফিল্টপস কম ওয়েবসাইটে যান এবং তার ডাটাবেস সমৃদ্ধ করার জন্য সমস্ত লিঙ্ক অনুসরণ করেন এবং এই নতুন নিবন্ধটি সেই জায়গাতে ক্রল করেন।

ওয়েবসাইট এর Meta Tags কি


আপনি কি এইচটিএমএল ট্যাগ শুনেছেন? মেটা ট্যাগগুলি হ'ল বিশেষ এইচটিএমএল ট্যাগ যা কোনও পৃষ্ঠায় কী রয়েছে তার একটি খুব সংক্ষিপ্ত ধারণা দেয়। উদাহরণস্বরূপ, Flitps.com ব্লগ পোস্টগুলিতে বিভিন্ন ট্যাগ রয়েছে, যার মধ্যে filtps, filtps blogger, bangla blogger, প্রযুক্তি আপডেট, প্রযুক্তি সংবাদ, নতুন প্রযুক্তি প্রযুক্তি বিজ্ঞান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কি প্রযুক্তি খবর বাংলাদেশ, বিজ্ঞান খবর, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির পার্থক্য, ধর্ম,অনলাইন আয়, রহস্যময়, সাফল্যের গল্প, প্রযুক্তি সংবাদ, নতুন পণ্য, বিল গেটস, কম্পিউটার, টেলিযোগাযোগ, বিজ্ঞান, টিপস-এন্ড-ট্রিকস, সামাজিক মাধ্যম, স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। মেটা ট্যাগগুলি এ জাতীয় ধারণা দেওয়ার জন্যও কাজ করে, তবে সেই ধারণাটি আমাদের নয়, অনুসন্ধান ইঞ্জিনগুলিতে দেওয়া হয়।

তবে মেটা ট্যাগ ব্যবহারে কিছু সমস্যা আছে। আপনি যেমন ইউটিউবে প্রায়শই দেখতে পাবেন, ভিডিও ট্যাগগুলিতে এমন সমস্ত লেখা রয়েছে যা ভিডিওর বিষয়বস্তুর সাথে কোনও সম্পর্ক রাখে না! এই জাতীয় জটিলতাগুলি কাটিয়ে ওঠার জন্য, পৃষ্ঠার অভ্যন্তরীণ সামগ্রী মেটা ট্যাগগুলির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ কিনা তা নির্ধারণ করতে সার্চ ইঞ্জিন মাকড়সা বিভিন্ন কৌশল ব্যবহার করে।


ইনডেক্স কিভাবে কাজ করে | গুগল কিভাবে কাজ করে


আমরা ইতিমধ্যে জানি যে মাকড়সাগুলি ইন্টারনেট থেকে তথ্য সংগ্রহ করে এবং পরে এটি সংরক্ষণ করে। বিশ্বজুড়ে কোটি কোটি ওয়েবসাইট প্রতি মুহুর্তে অগণিত তথ্য যোগ করছে, স্পাইডার ক্রমাগত ক্রল করছে, এবং সূচকটি প্রতিনিয়ত আপডেট হচ্ছে। একটি সার্চ ইঞ্জিন স্পাইডার দ্বারা সংগৃহীত তথ্য ব্যবহার করে তার সূচক বা ডাটাবেস তৈরি করে। একটি সূচীতে বিভিন্ন শব্দের তালিকা এবং তাদের ইউআরএল রয়েছে। 

প্রতিটি সার্চ ইঞ্জিনের প্রযুক্তি যেমন বিভিন্ন তেমনিভাবে ইন্ডেক্স তৈরীর তৈরির কৌশলও ভিন্ন। সার্চ ইঞ্জিন ঠিক করে দেয় যে কোন পেইজের কোন শব্দটিতে কতটুকু গুরুত্ব দেওয়া হবে। আর এই কাজটা সম্পন্ন করার জন্য এক একটা সার্চ ইঞ্জিন একেকরকম মাপকাঠি ব্যবহার করে থাকেন । সেজন্য আমরা গুগোল একটি শব্দ লিখে যদি সার্চ করি তাহলে যেটা প্রথমে আসবে অন্য একটি সার্চ ইঞ্জিনে হয়তো সেটা প্রথম 10 এর মধ্যেও দেখাবেনা।


গুগলে সার্চ করার পাঁচটি কৌশল | গুগল কিভাবে কাজ করে

গুগল প্রথমে মনে আসে যখন আপনাকে কোনও বিষয়ে কিছু জানা দরকার। গুগলের উত্তর হিসাবে তেমন কোনও জিনিস নেই। তবে, প্রায়শই দেখা যায় যে আমরা গুগলে বিভিন্ন উপায়ে অনুসন্ধান করে পছন্দসই ফলাফল খুঁজে পাই না। দোষ গুগল নয়, দোষটি সঠিক অনুসন্ধানের কৌশলের অভাব। আসুন আজ কয়েকটি দুর্দান্ত গুগল অনুসন্ধান টিপস দেখে নেওয়া যাক যা আপনাকে মুহুর্তের মধ্যে পছন্দসই ফলাফলগুলি খুঁজে পেতে সহায়তা করবে।

আরো পড়ুনঃ কেন গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়া যায় না বিস্তারিত এই পোস্ট


শব্দ বিভ্রাট এড়াতে | গুগল কিভাবে কাজ করে


জাগুয়ার একটি আশ্চর্যজনক সুন্দর বন্য প্রাণী, মনে করুন আপনি এটির জন্য গুগল অনুসন্ধান করেন। কিন্তু তল্লাশির পরেও জাগুয়ার নামক একটি জনপ্রিয় গাড়ি সংস্থার বিশদ, জাগুয়ার নামের প্রাণীর লেজ পাওয়া গেল না! গুগলে কখনও কখনও এটি ঘটে, বেশিরভাগ লোকেরা একই নামের সাথে কিছু জিনিস সন্ধান করলে গুগল অনুসন্ধান ফলাফলগুলিতে দেখায়। সুতরাং বিভ্রান্তি এড়াতে, জাগুয়ার - গাড়ী টাইপ করুন গুগল বুঝতে পারবে যে আপনি অনুসন্ধান থেকে গাড়ি সরাতে চান।

আরো পড়ুনঃ অ্যাডসেন্স ছারাই আয় বিস্তারিত এই পোস্ট

তাই এবার এটি কেবলমাত্র পশুর বিবরণ প্রদর্শন করবে। আবার প্রায়শই দেখা যায় একই নামের একটি দুর্দান্ত বই এবং সিনেমা রয়েছে। আপনি কেবল বইটি সম্পর্কে জানতে চান, তারপরে আপনি বইয়ের নাম-মভি লিখলে গুগল কেবল বইটি সম্পর্কে তথ্য প্রদর্শন করবে। এই কৌশলটি সময় সাশ্রয়ের জন্য দুর্দান্ত যখন আপনাকে একবারে অনেকগুলি অনুসন্ধান করতে হয়।


ছবি বিভ্রাট এড়াতে | গুগল কিভাবে কাজ করে

মনে করুন আপনি কারও সম্পর্কে একটি নিবন্ধ লিখছেন। আপনার লোকটির প্রতিকৃতি প্রয়োজন। গুগল ছবিতে সন্ধান করলে আপনি দেখতে পাবেন বিভিন্ন ছবি, কোথাও ব্যক্তি বসে আছেন, কোথাও তিনি বক্তৃতা দিচ্ছেন, কোথাও তিনি নিজের দিকে ফিরে এসেছেন - কাঙ্ক্ষিত প্রতিকৃতি চিত্র পাওয়া তার দায়িত্ব। তারপরে আপনি একটি জিনিস করতে পারেন, অনুসন্ধান পৃষ্ঠার URL টির শেষে & imgtype = face যুক্ত করুন, আপনি দেখতে পাবেন যে কেবলমাত্র মুখের চিত্র এখন আসছে। শুধু মানুষের ক্ষেত্রেই নয়, অন্যান্য ক্ষেত্রেও ফলাফল বেশ আকর্ষণীয়। উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি গোলাপ টাইপ করে অনুসন্ধান করেন তবে বিভিন্ন ধরণের গোলাপের ছবি পাবেন তবে অনুসন্ধান URL টির শেষে আপনি যদি & imgtype মুখ টাইপ করেন তবে আপনি লোকজনের ছবি দেখতে পাবেন।

হতে পারে গুগল আপনাকে গোলাপ লিপস্টিক সহ একটি মুখ, বা গোলাপের মালা দিয়ে সজ্জিত একটি মুখ, অর্থাৎ গোলাপের সাথে যুক্ত সমস্ত মুখের ছবি দেখিয়ে দেবে। আসুন একটি মজাদার অ্যাপ্লিকেশন দেখুন। আমরা সবাই জানি যে উল্লুকএকটি প্রাণী। উল্লুক এর জন্য গুগল অনুসন্ধান করুন এবং আপনি প্রাণীর বিভিন্ন ছবি পাবেন। তবে অনুসন্ধান পৃষ্ঠার ইউআরএল শেষে & imgtype = face" যুক্ত করুন এবং দেখুন কী।


ডিকশনারি হিসেবে ব্যবহার | গুগল কিভাবে কাজ করে


আমাদের প্রতিটি স্মার্টফোনের আজকাল ইংরাজী থেকে ইংলিশ বা ইংরেজি থেকে বাংলা এর অভিধান রয়েছে Bengali আপনি যদি চান তবে আপনি গুগলের সাথে একটি দুর্দান্ত অভিধানও চালাতে পারেন। মনে করুন আপনি টম্বস্টোন শব্দের অর্থ জানতে চান। আপনি যদি টম্বস্টোনকে সংজ্ঞায়িত করুন এবং এটি গুগল টাইপ করেন তবে আপনি শব্দটির অর্থ, উচ্চারণ, বাক্যে ব্যবহার, সমার্থক-বিপরীত শব্দ সব মিলিয়ে পাবেন। এইভাবে কোনও শব্দের আগে সংজ্ঞায়িত যুক্ত করে, আপনি গুগল খুব উচ্চ মানের অভিধানের সুবিধা পেতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি এই পোস্ট বিস্তারিত


কনভার্টার, টাইমার, স্টপওয়াচ, ক্যালকুলেটর, 

গুগোল শুধু তথ্য সার্চ করার জন্যই নয় গুগলের আরো বেশ কয়েকটি ফিচারস রয়েছে। আপনি যদি গুগলে ক্যালকুলেটর লিখে সার্চ করেন তাহলে একটি সুন্দর ক্যালকুলেটর চলে আসবে। এভাবে আপনি গুগল থেকে টাইমার, স্টপওয়াচ সার্চ করলে টাইমার এবং স্টপ ওয়াচ ব্যবহার করতে পারবেন। কনভার্টার জিনিসটা অনেক বেশি কাজের। বাংলাদেশসহ পৃথিবীর বেশিরভাগ দেশেই ওজন মাপার জন্য মেট্রিক সিস্টেম ব্যবহার করা হয়। অর্থাৎ আমরা পরিমাপ ওজন পরিমাপ করি কেজিতে কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের ওজন পরিমাপ করা হয় পাউন্ড হিসাবে। 

কিন্তু আমরা এই পাউন্ড, কেজি, ফারেনহাইট, সেলসিয়াস, ফিট, মিটার ইত্যাদি পরিমাপ নিয়ে প্রায়ই অনেক সমস্যায় পড়ি। কিন্তু চিন্তার কোন কারণ নেই আপনি চাইলেই চট করে গুগল থেকেই এই সমস্ত কিছু জেনে নিতে পারেন । যেমন আপনি যদি জানতে চান যে  71 কেজি পাউন্ড কনভার্ট করলে কত হবে তাহলে আপনি যদি গুগলে সার্চ করেন 71 কেজি ইন পাউন্ড তাহলে আপনার কাছে উত্তর চলে আসবে । এভাবে আপনি যদি কোনোকিছু কনভার্ট করতে চান তাহলে গুগোল দিবে আপনাকে সঠিক সমাধান।

আমাদের শেষ কথা 

তো প্রিয় বন্ধুরা আপনারা আজকে আমার এ পোস্ট থেকে জানতে পারলেন যে গুগল কিভাবে সঠিক ভাবে কাজ করে থাকে। এবং গুগলের সার্চ করার কয়েকটি চমৎকার কৌশল। আমার এই পোস্টটা যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন । ধন্যবাদ সবাইকে


Post a Comment

অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো

জনপ্রিয় পোস্ট